দাম্পত্য জীবনকে সুখী ও সুন্দর করতে কে না চায়। তবে এর সুনির্দিষ্ট কোনো টিপস নেই। সম্পর্ক মধুর রাখতে হলে জীবনকে বাস্তব অভিজ্ঞতা ও রোমান্টিকতা দিয়ে বুঝতে হবে। পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস খুবই জরুরি। হতে হবে পরস্পরের প্রতি যত্নবান।
সাধারণ কিছু বিষয় আছে যেগুলো সব সম্পর্কেই দেখা যায়। তার শুরু যৌথ জীবনের প্রথম সকাল থেকেই। সে সব মিষ্টি নিয়ম আপনার দাম্পত্য জীবনকে করে তুলতে পারে অতুলনীয়। এবার তেমন কিছু বিষয়ে চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক-
একে-অপরকে আলিঙ্গন ও চুম্বন করুন : এটা শুনে আপনার মনে হতে পারে এগুলো শুধু হলিউডের মুভিতেই ভালো লাগে, বাস্তব জীবনে নয়। কিন্তু সকালে কাজে কিংবা অফিসে যাওয়ার আগে সঙ্গীর সঙ্গে আলিঙ্গন আপনার দিনের শুরুটা যেমন চাঙ্গা করবে তেমন শেষ পর্যন্ত এর রেশ আপনার মধ্যে রয়েই যাবে। সারাটা দিন ভালো কাটবে।
তোমার দিনটা শুভ হোক :যদি মোবাইল অপারেটর কোম্পানি ফোন করে বলে ‘হ্যাভ আ নাইস ডে’—তাতে পাত্তা দেওয়ার তেমন কিছু নেই। কিন্তু এ কথাটির দারুণ ফল পাবেন দাম্পত্য জীবনে। প্রতিদিন সকালে অফিসে কিংবা কাজে যাওয়ার সময় তাকে বলুন ‘তোমার দিনটা শুভ হোক’। এতে করে তিনি দিনটা সুন্দর করে সাজানোর প্রেরণা পাবেন।

সারপ্রাইজ তৈরি রাখুন : এটা হতে পারে খুব ছোট কিছু। কিন্তু তার কাছে পৌঁছা মাত্রই বড় কিছু হয়ে উঠবে। হতে পারে অনলাইনে অর্ডার দেওয়া কিছু বা নিজের হাতে তৈরি কোনো খাবার। এই ছোট ছোট চমকগুলো দাম্পত্য সম্পর্ককে আরও মধুর করে তোলে।
কমপক্ষে একটি মিষ্টি বার্তা দিন : প্রিয়জনকে নিয়ে দেখা প্রতিটা স্বপ্নকে ছুঁতে কার না ইচ্ছে করে! তাই তাকে দিনে কমপক্ষে একটি সুন্দর বার্তা বা ছবি পাঠান। এটা হতে পারে আপনাদের স্বপ্নের বাড়ির ছবি কিংবা সেই সুদূর আইফেল টাওয়ারের ছবি, যা তাকে স্বপ্ন পূরণে আরও কঠোর পরিশ্রম করতে সাহস ও প্রেরণা দেবে। পাঠাতে পারেন পছন্দের কবিতা বা গানের লাইন। অথবা খুব সহজ অথচ কঠিন কথা ‘আমি তোমাকে ভালবাসি’।
সবশেষে, সকালে বের হওয়ার সময় কখনই পরিবারের ঝুট-ঝামেলা, টাকা-পয়সা বা অফিসের চাপ নিয়ে কথা বলবেন না। এতে মনে সেই কথাগুলো দাগ কেটে যাবে এবং কর্ম-উদ্দীপনাকে ব্যাহত করবে।