টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের আওয়ামী লীগের এমপি মো. ছানোয়ার হোসেনকে শাসনের পর আদর করলেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এমপি ছানোয়ারের ব্যবহারে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে চড়-থাপ্পড় মারেন ওবায়দুল কাদের। তবে অনাকাঙ্খিত ঘটনার শেষে মাথায় হাত বুলিয়ে আদরও করেছেন ওবায়দুল কাদের।

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার যমুনা রিসোর্টে শনিবার রাত ৯টার পর এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, নাটোর থেকে যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের যমুনা রিসোর্টে রাতের খাবারের জন্য বিরতি নেন। এসময় তার রাতের খাওয়ার আয়োজন করেন টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের নব-নির্বাচিত এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী। কিন্তু হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী তাৎক্ষনিকভাবে উপস্থিত না থাকায় ওবায়দুল কাদের নেতাকর্মীদের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে রাতের খাবার না খেয়েই চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নেন।

এসময় টাঙ্গাইল-৫ সদর আসনের এমপি মো. ছানোয়ার হোসেন ওবায়দুল কাদেরকে খাওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। এ সময় ছানেয়ার কাদেরকে বলেন, হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী রাস্তায় আছেন। তিনি কিছুক্ষণের মধ্যে চলে আসবেন।

ছানোয়ার একথা বলার সঙ্গে সঙ্গে ওবায়দুল কাদের হঠাৎ ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে চড়-থাপ্পড় মেরে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন ও অন্যান্য নেতাকর্মীদেরও গালমন্দ করেন। এসময় নেতাকর্মীরা হতভম্ভ হয়ে যান। পরে তিনি রিসোর্ট ত্যাগ করার আগে এমপি ছানোয়ার হোসেনের মাথায় হাত বুলিয়ে তাকে সান্ত্বনা দেন।

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের নব-নির্বাচিত এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওবায়দুল কাদের ভাই আমাদের অভিভাবক। তিনি আমাদের শাসন করেন আবার আদরও করেন। এটি ছিল একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইল সদরের এমপি মো. ছানোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, এটা তেমন কোনো ঘটনাই নয়। বড় ভাই আমাকে মারতেই পারেন, আবার আদরও করতে পারেন। ভুলটা আমাদেরই ছিল। সময় মতো যেতে পারিনি। তাই তিনি একটু শাসন করেছেন। এর বেশি কিছু না।