শত চেষ্টা করেও বাঁচানো গেল না হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে জন্ম নেওয়া যমজ দুই শিশু ময়না-টিয়াকে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যায়।

শিশুদের বাবা জলিল মিয়া জানান, টিয়া ও ময়না শ্বাসকষ্টে ভুগছিল। ডাক্তারি পরীক্ষায় দেখা গেছে, তাদের পেটের লিভার ছিল অভিন্ন। চিকিৎসকরা তাদের সর্বোচ্চ সেবা দিয়েছেন। তারপরেও তাদের বাঁচানো যায়নি।

এর আগে ১১ অক্টোবর হবিগঞ্জ শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে গৃহবধূ জোৎসনা বেগম জন্ম দেন পেট ও বুক জোড়া লাগানো দুই শিশু টিয়া-ময়না। যমজ সন্তানের জন্মের আনন্দের চেয়ে দরিদ্র মা-বাবার কাছে তাদের আলাদা করার চিন্তাই বড় হয়ে দাঁড়ায়। অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় বেড়ে উঠতে পারছিল না টিয়া-ময়না। চিকিৎসকরা বলেছিলেন অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে শিশু দুটিকে আলাদা করা সম্ভব। তবে এর জন্য প্রয়োজন বিপুল অর্থের।

পরে স্থানীয় ও জাতীয় পত্রপত্রিকায় এবং টিভি চ্যানেলে সংবাদ প্রচার হলে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসন ওই শিশু দুটির চিকিৎসার দায়দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

প্রাথমিকভাবে জেলা প্রশাসন ১০ হাজার ও স্থানীয় সংসদ সদস্য আবু জাহির ১০ হাজার টাকা দেন শিশু দুটির পরিবারকে। এরপর ১৬ অক্টোবর বিকেলে তাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।