ভারতের জনপ্রিয় অভিনেত্রী পাওলি দাম। বিশেষ করে টলিউড সিনেমার পরিচিত মুখ তিনি।

পাওলির শরীরে রঙ ছোটবেলা থেকেই কালো। এদিকে খেলাধুলার প্রতি প্রচন্ড আগ্রহ থাকায় তাতে রোদের আঁচ পড়ে সে রঙ যেন আরো গভীর হয়। যার জন্য পরিবারসহ সহপাঠীদের কাছে নানা সময় নানা কথা শুনতে হয়েছে তাকে। কিন্তু এই কালো মেয়েটি সময়ের সঙ্গে নিজেকে ঠিকই প্রমাণ করেছেন।

বলিউডের অনেক অভিনেত্রীকেই বডি শেমিংয়ের মুখে পড়তে হয়েছে। কেউ হয়তো কথা শুনেছেন শরীরের রঙ নিয়ে, আবার অনেকেই শরীরের গড়ন অথবা ওজন নিয়ে। সম্প্রতি একটি কমিডি শোতে শরীরের রঙ নিয়ে বিদ্রূপের অভিযোগ তুলেছেন অভিনেত্রী তন্নিষ্ঠা চ্যাটার্জি। এ ঘটনার পর ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন পাওলি দাম। তার শরীরের রঙ নিয়ে তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা এ সময় শেয়ার করেন এই অভিনেত্রী।

এ প্রসঙ্গে পাওলি দাম বলেন, ‘‘আমি স্কুলে স্পোর্টস ক্যাপটিন ছিলাম। তাই স্বাভাবিকভাবেই রোদে বেশি সময় থাকতাম। যার জন্য ত্বক আরো পোড়ে যেত। একবার আমার এক আত্মীয় বলেছিল, ‘এভাবে তো আরো কালো হয়ে গেছিস। একটু দই-টই লাগা।’’

একবার মায়ের কাছে আমি জানতে চেয়েছিলাম, ‘তুমি এত ফর্সা আর আমি কালো হলাম কেন?’ যদিও এতে আমি ভেতরে ক্ষত অনুভব করি। তারপর শরীরের রঙ নিয়ে পড়াশোনা করি। তখন আমি অনুধাবন করতে পারি, এটা আমি পরিবর্তন করতে পারব না।’ বলেন পাওলি।

পাওলির এক কাজিনের গায়ের রঙ সন্তোষজনক না থাকায় কয়েকবার তার বিয়ে ভেঙে যাওয়ার কথাও জানান এই অভিনেত্রী।

সমরেশ মজুমদারের কালবেলা ওপন্যাস অবলম্বনে গৌতম ঘোষ নির্মাণ করেন কালবেলা শিরোনামের সিনেমা। এ সিনেমায় মাধবীলতা চরিত্রে অভিনয় করে রাতারাতি জনপ্রিয়তার শিখরে পৌঁছান পাওলি। এছাড়া মনের মানুষ সিনেমার মতো অনেক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন পাওলি।