পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ের ৭ জোড়া বিশেষ আন্তঃনগর ট্রেন বৃহষ্পতিবার থেকে চলাচল শুরু করবে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে অতিরিক্ত যাত্রীদের চাপ সামাল দিতে ২২ জুন থেকে চলাচল শুরু করা এই ৭ জোড়া বিশেষ ট্রেন ২৫ জুন পর্যন্ত ঢাকা থেকে যাত্রী নেবে। এই সার্ভিসের মাধ্যমে প্রতিদিন অতিরিক্ত ৮০ হাজার যাত্রীসহ আড়াই লাখ যাত্রী বহনের টার্গেট করা হয়েছে। আর ঢাকায় যাত্রী ফেরত আনবে ২৮ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত।

ঈদসেবা নিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুর হক জানান, ঈদে অধিক যাত্রী পরিবহনের সুবিধার্থে বিদ্যমান ১ হাজার ১৬১টি কোচের সঙ্গে আরো ১৭১টি কোচ বৃদ্ধি করে মোট ১ হাজার ৩৩২টি কোচ ও ২২৯টি ইঞ্জিন দিয়ে যাত্রীসেবা দেয়া হবে।

রেলওয়ের ডিজি আমজাদ হোসেইন জানান, যাত্রীর চাহিদা বিবেচনা করে ২৩ জুনের পরিবর্তে রাজশাহী ও পাবর্তীপুরগামী ট্রেন ২২ জুন আগামীকাল থেকে চলা শুরু করবে। বাংলাদেশ রেলওয়ে বিশেষ ট্রেন চালুর ব্যাপারে ইতোমধ্যেই প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। সুষ্ঠু ও নিরাপদে ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ২১ থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত সকল প্রকার ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

বিশেষ ট্রেন সার্ভিসগুলো যেসব রুটে যাতায়াত করবে- দেওয়ানগঞ্জ স্পেশাল চলাচল করবে ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা লাইনে, চাঁদপুর স্পেশাল ১ ও চাঁদপুর স্পেশাল ২ চলাচল করবে চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম লাইনে, রাজশাহী স্পেশাল চলাচল করবে রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী লাইনে।

খুলনা স্পেশাল: খুলনা-ঢাকা-খুলনা এবং পার্বতীপুর স্পেশাল পার্বতীপুর-ঢাকা-পার্বতীপুর লাইনে চলাচল করবে ২২ থেকে ২৫ জুন ও ২৮ জুন থেকে ৩ জুলাই পর্যন্ত।

এ ছাড়া শুধু ঈদের দিনের জন্য রয়েছে সোলাকিয়া স্পেশাল-১ : ভৈরব-কিশোরগঞ্জ- ভৈরব ও সোলাকিয়া স্পেশাল-২: ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ দুই জোড়া স্পেশাল ট্রেন সার্ভিস।

টিকিটধারী যাত্রীদের ভ্রমণের সুবিধার্থে জয়দেবপুর ও বিমানবন্দর স্টেশন থেকে ঢাকাগামী আন্তঃজোনাল ও আন্তঃনগর ট্রেনে কোনো আসনবিহীন যাত্রী চলাচল করবে না উল্লেখ করে রেলমন্ত্রী বলেন, যাত্রীদের ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ঈদের ৩ দিন আগে থেকে কনটেইনার ও জ্বালানি তেলবাহী ট্রেন ছাড়া কোনো গুডস ট্রেন চলাচল করবে না। তবে ঈদের দিন বিশেষ ব্যবস্থাপনায় কতিপয় মেইল এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করবে। কোনো আন্তঃনগর ট্রেন এদিন চলাচল করবে না।

বাংলাদেশ রেলওয়ের (পশ্চিম) জেনারেল ম্যানেজারের অফিস থেকে জানাগেছে, বিশেষ ট্রেন পার্বতীপুর রেল স্টেশন থেকে সকাল ৬টা ৪৫ মিনিটে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে বিকাল ৩টা ৫০মিনিটে। এই ট্রেনটি ঢাকা থেকে বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে ছেড়ে রাত ৩টায় পার্বতীপুর পৌঁছাবে। বিশেষ ট্রেনটিতে ৯টি বগি থাকবে। অপর বিশেষ ট্রেনটি খুলনা থেকে সকাল সাড়ে ১০টায় ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে রাত ৮টা ২০মিনিটে এবং ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাত ৯টা ২৫ মিনিটে ছেড়ে খুলনা পৌঁছাবে পরদিন সকাল ৭টায়। বিশেষ ট্রেনটিতে ১০টি বগি থাকবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের (পূর্ব) জেনারেল ম্যানেজারের অফিস থেকে পাওয়া তথ্য থেকে জানা গেছে, ঢাকা থেকে দেওয়ানগঞ্জ পর্যন্ত বিশেষ ট্রেন সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা থেকে ছেড়ে বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে দেওয়ানগঞ্জ পৌঁছাবে। ট্রেনটি পুনরায় বিকেল ৪টায় দেওয়ানগঞ্জ থেকে ছেড়ে ঢাকায় পৌঁছাবে রাত ১১টা ১০ মিনিটে।

চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রামের মধ্যে চলাচলকারী বিশেষ ট্রেন চাঁদপুর স্পেশাল-১ সকাল সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম ছেড়ে বিকেল ৫টা ৫ মিনিটে চাঁদপুর পৌঁছাবে। ট্রেনটি পুনরায় রাত ৩টা ৪৫ মিনিটে চাঁদপুর ছেড়ে সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে চট্টগ্রাম পৌঁছাবে।

চাঁদপুর স্পেশাল-২ বিকাল ৩টা ৩০ মিনিটে চট্টগ্রাম ছেড়ে চাঁদপুর পৌঁছাবে রাত ৮টা ৫ মিনিটে। ট্রেনটি পরদিন সকাল ৬টায় চাঁদপুর ছেড়ে চট্টগ্রাম পৌঁছাবে দুপুর ১২টায়।

ঈদের দিন সকাল ৬টায় ভৈরববাজার থেকে সোলাকিয়া এক্সপ্রেস ট্রেন ছেড়ে সকাল ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছাবে। ট্রেনটি ঈদের নামাজ শেষে দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ ছেড়ে দুপুর ২টায় ভৈরববাজার পৌঁছাবে।

ময়মনসিংহ থেকে সকাল ৫টা ৪৫ মিনিটে অপর সোলাকিয়া এক্সপ্রেস ট্রেন কিশোরগঞ্জের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবে এবং সকাল ৮টায় কিশোরগঞ্জ পৌঁছাবে। ট্রেনটি দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জ ছেড়ে বিকেল ৩টায় ময়মনসিংহ পৌঁছাবে।