স্মার্টফোনের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর অথবা ল্যাপটপের টাচপ্যাড ব্যবহার করে পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা যেন অধিক নিরাপদ থাকে, সেজন্য বিজ্ঞানীরা শরীরের মধ্যে দিয়ে পাসওয়ার্ড প্রবাহের উপায় উদ্ভাবন করেছেন। কেননা ওয়াই-ফাই অথবা ব্লুটুথ মতো বায়ুবাহিত বেতার তরঙ্গের মাধ্যমে প্রবাহিত পাসওয়ার্ড হ্যাকিং করা যায়।

ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞানী ও বিদ্যুৎ প্রকৌশলীদের একটি দল নতুন এই ‘অন-বডি’ তরঙ্গ প্রবাহ উদ্ভাবন করেছেন, যেখানে ব্যবহারকারী ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর অথবা ট্যাচপ্যাডের মাধ্যমে পাসওয়ার্ড বায়ুবাহিত তরঙ্গের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত না হয়ে, ব্যবহারকারীর শরীরের মধ্যে দিয়ে পৌঁছাবে। এবং তা কম ফ্রিকোয়েন্সির তরঙ্গ হওয়ায় শরীরের জন্য ক্ষতিকারক নয়।

ওয়াই-ফাই অথবা ব্লুটুথের মাধ্যমে পাসওয়ার্ডের মতো তথ্য প্রবাহ সবচেয়ে প্রচলিত এবং সুবিধাজনক পদ্ধতি কিন্তু হ্যাকাররা সেখান থেকে পাসওয়ার্ড চুরি করতে সক্ষম।

নতুন এ পদ্ধতির ব্যাখায় গবেষক মার্ডেড হেশার বলেন, ‘যদি আমি ইলেকট্রনিক স্মার্টলক ব্যবহার করে দরজা খুলতে চাই, তাহলে দরজার হাতলে এবং আমার স্মার্টফোনের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরে টাচ করার পর, তথ্য শরীরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে দরজা খুলে যাবে, বায়ুবাহিত তরঙ্গে তথ্য যাবে না।’

ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যপক শ্যাম গোলাকটা বলেন, ‘ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর এতদিন ইনপুট ডিভাইস হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা প্রথমবারের মতো দেখিয়েছি যে, এই সেন্সর পুণরায় উপলক্ষিত করে শরীরের মধ্যে আটকে রেখে প্রবাহিত করা যাবে।’

বিজ্ঞানীরা এ প্রক্রিয়ায় ল্যাপটপের টাচপ্যাড থেকে ৫০ বিট পার সেকেন্ড এবং স্মার্টফোনের ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর থেকে ২৫ বিট পার সেকেন্ডে শরীরের মধ্য দিয়ে পাসওয়ার্ড বা কোড পাঠাতে সক্ষম হয়েছেন। প্রক্রিয়াটি সহজলভ্য করতে আরো বিস্তারিত গবেষণা অব্যহত রেখেছেন বিজ্ঞানীরা।