হাওর অঞ্চল নিয়ে সরকারের কোনো দায়বদ্ধতা নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, “হাওর অঞ্চল যখন বন্যাকবলিত, তখন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিদেশ সফর প্রমাণ করে, তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই।”

বৃহস্পতিবার দুপুরে বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াকে দেখতে হাসপাতালে যান বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

হাসপাতাল থেকে বের হয়ে সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় ও হাওর অঞ্চলের বন্যা-পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ সময় হাওর অধিদফতরের কর্মকর্তাদের বিদেশ সফর নিয়ে সমালোচনা করেন।

ফখরুল বলেন, “সরকার কীভাবে দেশ চালাচ্ছে, তা-ই প্রমাণ করে। এখানে যে কোনো সুশাসন নেই, তা বোঝা যায়। কারণ, দেশে এতো বড় একটা দুর্যোগ এসে উপস্থিত হয়েছে, সে সময়ে এই দফতরের কর্মকর্তারা যদি বিদেশে যান, তাহলে বুঝতে হবে যে সরকার নেই, দায়বদ্ধতাও নেই।”

এ সময় মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর হাওর অঞ্চলে আরো আগেই যাওয়া উচিত ছিল।

আর মে দিবস উপলক্ষে পয়লা মে কোনো দলকে সমাবেশের অনুমতি দেয়া হবে না- পুলিশের তরফ থেকে এমনটা জানানোর পর সমাবেশের জন্য নতুন করে আবেদন করেছে বিএনপি। কিন্তু অনুমতি না দেয়ায় এর সমালোচনা করেন বিএনপি মহাসচিব।

ফখরুল বলেন, “এ মুহূর্তে আমরা কোনো সংঘাতে যাওয়ার কথা চিন্তা করছি না। সরকার তার চিরাচরিত যে নীতি, বিরোধী দলকে তারা কোনো সভা-সমাবেশ করতে দেবে না- এটা তারই বহিঃপ্রকাশ। এখান থেকেই বোঝা যায় যে, গণতন্ত্রের অবস্থা কোন জায়গায় আছে। গণতন্ত্র যে বাংলাদেশে নেই, এটা তারই একটা বড় প্রমাণ।”

উল্লেখ্য, মে দিবস উপলক্ষে ২ অথবা ৩ মে শ্রমিক সমাবেশের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আবেদন করেছে বিএনপি।