যুক্তরাজ্যস্থ ঢাকাদক্ষিণ এলাকাবাসীদের নিয়ে সুধী সমাবেশ ও প্রস্তাবিত গোলাপগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও ভূমিদাতা সদস্যদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে বিশ্ব বরেণ্য ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশের গৌরব ড. কালী প্রদীপ চৌধুরী বলেন, ঢাকাদক্ষিণ আমার জন্মস্থান। এই এলাকার সন্তান হিসাবে আমি দেশ-বিদেশে গর্ববোধ করি। আমি আমার এলাকার জন্য কোন উন্নয়ন করতে পারলে নিজেকে গৌরবান্বিত মনে করব।

গত ৯ এপ্রিল ইষ্ট লন্ডনস্থ দি আরটিম সেন্টারে সংগঠনের সভাপতি নাছিম আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন  কেপিসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ঢাকাদক্ষিন এলাকার কৃতিসন্তান ড. কালী প্রদীপ চৌধুরী।

সংগঠনের সহ-সাধারন সম্পাদক এতোয়ার হোসেন মুজিবের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সুচনা হয়। সভা পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস জুনেদ। তাকে সহযোগিতার করেন তাজুল ইসলাম ও শামীম আহমদ।

লন্ডনে ঢাকাদক্ষিণ এলাকাবাসীদের স্মরণকালের এ অনুষ্ঠানে লোকে লোকারণ্য দেখে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করা নক্ষত্র ড. কালী প্রদীপ চৌধুরী  আরো বলেন, আমার প্রতি আপনাদের অকৃত্রিম ভালবাসায় আমি অভিভুত। তিনি তার বক্তব্যে প্রবাসী ঢাকাদক্ষিণবাসীদের প্রতি তার অনুভূতি ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। অনুষ্ঠানে তাকে বিশেষ অবদানের একটি সম্মাননা ট্রপি প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে ড. কালী প্রদীপ চৌধুরী তার নিজের কেপিসি চ্যারেটি ট্রাষ্ট ও ঢাকাদক্ষিন উন্নয়ন সংস্থার যৌথ উদ্যোগে ঢাকাদক্ষিণের উন্নয়নের জন্য ১ কোটি টাকা অনুদানের ঘোষণা প্রদান করেন।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা সদস্য উপদেষ্টা তছউর আলী মাষ্টার, উপদেষ্টা আতাউর রহমান আঙুর, আমেরিকা প্রবাসী কমিউনিটি নেতা গোলাম রববানী খান, উপদেষ্টা শামীম আহমদ, সহ-সভাপতি জুবায়ের আহমদ খান মিলন, সহ-সভাপতি দেওয়ান নজরুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ সেলিম আহমদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আনোয়ার শাহজাহান, ইসি মেম্বার আশরাফ হোসেন শফি, সাবেক সাধারন সম্পাদক আবজল হোসেন, সাবেক সাধারন সম্পাদক দেলোয়ার আহমদ শাহান প্রমুখ।

সভায় সংগঠনের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন কমর উদ্দিন মাষ্টার, মোহাম্মদ জমির উদ্দিন, মো নুর উদ্দিন শাহনুর ও মামুনুর রশীদ খান এবং কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি রুহুল আমিন সেলিম ও মাসুদ আহমদ জুয়েল, মেম্বারশীপ সেক্রেটারী রিয়াজ উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাওসার আহমদ জগলূ, ধর্ম ও শিক্ষা সম্পাদক ফরিদ আহমদ, নির্বাহী সদস্য শাহরিয়ার আহমদ সুমন, হেলাল আহমদ, কামাল উদ্দিন, সাদেক আহমদ, রায়হান উদ্দিন, সিরাজুল ইসলাম আকবর, রোসুম জসিম উদ্দিন, জুবায়ের সিদ্দীকি, নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

লন্ডনে এই প্রথমবারের মত ঢাকাদক্ষিনবাসীদের  রিইউনিয়ন অনুষ্ঠানে গোলাপগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও ভূমিদাতা ৫৫ জনকে ট্রপি প্রদান করা হয়। যাদেরকে সম্মাননা ট্রপি দেয়া হয় তারা হলেন, দেওয়ান নজরুল ইসলাম, রিয়াজ উদ্দিন, মরহুম হাজী ইরমান আলী, মোহাম্মদ সাব উদ্দিন, মো মুহিব উদ্দিন, আবুল কালাম, আফসার মাহমুদ চৌধুরী, আনোয়ার শাহজাহান, মোহাম্মদ আশফাক চৌধুরী, মরহুম নিমার আলী (তারা মিয়া), এ রহমান শায়িস্তা, বেলাল হোসেন, ডা মাসুক উদ্দিন, এতোওয়ার হোসেন মুজিব, গোলাম রববানী খান, মাসুদ আহমদ জুয়েল, মোহাম্মদ ইব্রাহিম আলী, হাম্মাদ আল হাদী আলী, হেলাল আহমেদ, মরহুম ইয়াকুব আলী খান, কামাল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন খোকন, খয়রুল ইসলাম, মরহুম আব্দুল কুদ্দুস, মাহমুম মাসরুর আহমেদ, মরহুম আব্দুল মতিন মাষ্টার, কাওছার আহমদ জগলু, তাজুল ইসলাম, মোহাম্মদ জামিল উদ্দিন, মোহাম্মদ শামীম আহমদ, মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান হাফিজ, সেলিম আহমেদ, তমিজুর রহমান রঞ্জু, মো মুক্তাউর রহমান, নাছিম আহমেদ, মো নিজাম উদ্দিন নজরুল, নুরুল আমিন শাহীন, ওমর চৌধুরী, শামীম আহমেদ রাসেল, রাহিম উদ্দিন মুক্তা, রুহুল আমিন রুহেল, রুহুল কুদ্দুস জুনেদ, রাসেল আহমেদ, সিদ্দিক খান, মরহুম আব্দুল মান্নান (কনাই মিয়া), ছালিক আহমেদ, আতিকুর রহমান সাফা, শাহজাহান চৌধুরী, সাকিল আহমেদ, সাকিল রহমান, সাহিল আহমেদ, সিরাজূল ইসলাম আকবর, তাজুল ইসলাম তাজ, জিয়াউল হক শামীম, জুবের সিদ্দিকী। এছাড়া বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ও ঢাকাদক্ষিণ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আমির উদ্দিন সাদেককে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ প্রতিষ্ঠায় বিশেষ অবদানের জন্য বিশেষ সম্মাননা ট্রপি প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানের শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।