বারবার তাকে তলব করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। একবারও হাজিরা দেননি তিনি। অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি চিন্নাস্বামী স্বামীনাথন কারনানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলেন শীর্ষ আদালতের বিচারপতি। ৩১ মার্চ তাকে আদালতে হাজির করতে কলকাতার পুলিশ কমিশনারকে নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি জগদীশ সিং খেহরের নেতৃত্বাধীন সাত সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ। স্বাধীন ভারতে এর আগে কর্মরত কোনো বিচারপতির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হওয়ার নজির নেই। তবে, বিচারপতি কারনানের বিরুদ্ধে জারি করা পরোয়ানা জামিনযোগ্য।

এনডিটিভি জানিয়েছে, মাদ্রাজ হাইকোর্ট থেকে কলকাতা হাইকোর্টে নিজের বদলির আদেশ স্থগিত করে শিরোনামে এসেছিলেন বিচারপতি কারনান। বিচার বিভাগে দুর্নীতি নিয়ে চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে তার বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে একটি আদালত অবমাননার মামলা দায়ের করে শীর্ষ আদালত। সেই মামলাতেই প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ বিচারপতি কারনানকে আদালতে তলব করে। তার জবাবে বিচার বিভাগে জাতপাতের বিদ্বেষের অভিযোগ এনে সুপ্রিমকোর্টকে বিস্ফোরক চিঠি লেখেন কারনান।

প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধেও পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তোলেন তিনি। উচ্চবর্ণের বিচারপতিরা তাকে সরানোর চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ করেন। শীর্ষ আদালতের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে লেখা চিঠিতে বিচারপতি কারনানের আর্জি ছিল, বর্তমান প্রধান বিচারপতির অবসরের পর যেন তার বিরুদ্ধে হওয়া আদালত অবমাননার বিচার করা হয়।