পৃথিবীর একমাত্র প্রাকৃতিক উপগ্রহ চাঁদ। কিন্তু আপনি যদি বলেন চাঁদের বয়স কত? তাহলে এ নিয়ে অনেক মতভেদ রয়েছে। বলা হয়ে থাকে, পৃথিবীর সঙ্গে থেইয়া নামক গ্রহগত পদার্থের প্রচণ্ড সংঘর্ষের ফলে চাঁদের সৃষ্টি হয়েছে। তাই পৃথিবীতে জীবের অবস্থান কতদিন ধরে বিষয়টি জানতেও এই সংঘর্ষ কতদিন আগে হয়েছিল জানা জরুরি।

সম্প্রতি বিজ্ঞানীদের একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, চাঁদের বয়স ৪.৫১ বিলিয়ন বছর। বর্তমান হিসাব যদি সঠিক হয়ে থাকে তাহলে চাঁদের বয়স নিয়ে আগে যে হিসাব করা হয়েছিল তা ভুল। কারণ তখন প্রকাশিত চাঁদের বয়সের চেয়ে এটি প্রায় ৪০-১৪০ মিলিয়ন বছর বেশি। জিরকনস নামক চাঁদের এক খনিজ পদার্থের ওপর গবেষণায় এ তথ্য পাওয়া গেছে।

১৯৭১ সালে অ্যাপোলো-১৪ মিশনে এই খনিজ পদার্থটি আনা হয়েছিল। এর ওপর ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া-লস অ্যাঞ্জেলেসের পক্ষ থেকে করা একটি গবেষণায় তথ্যটি জানা যায়।

চাঁদের প্রকৃত বয়স কত-এ নিয়ে অনেকদিন ধরেই গবেষণা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ নিয়ে অনেক তর্ক-বিতর্ক হয়েছে। এ বিষয়ে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া লস অ্যাঞ্জেলেসের আর্থ, প্লানেটারি অ্যান্ড স্পেস সায়েন্স বিভাগের রিসার্চ জিওকেমিস্ট মেলানি বারবোনি বলেন, ‘আমরা অবশেষ চাঁদের একটি সর্বনিম্ন বয়স স্থির করেছি।’ নতুন এই গবেষণায় বলা হয়েছে সৌরজগত সৃষ্টির ৬০ মিলিয়ন বছর পর চাঁদ সৃষ্টি হয়েছিল।

গবেষণার সহকারী কেভিন ম্যাককীগান বলেন, ‘জিরকন সময় নির্ধারণের একটি সেরা প্রাকৃতিক উপদান। এদের সৃষ্টি কোথায় হয়েছিল এটি জানানোর জন্য এটি চমৎকার একটি খনিজ উপাদান।’

চাঁদের বয়স নির্ধারণের ব্যাপারে আগের পরীক্ষাগুলোতে সেখানকার পাথরের উপর গবেষণা চালানো হয়েছিল এবং বলা হয়েছিল, কতগুলো সংঘর্ষের ফলে এগুলো তৈরি। এ বিষয়ে অনেক মতভেদ থাকলেও বেশির ভাগ বিজ্ঞানীরাই মনে করেন, পৃথিবী এবং থেইয়ার সংঘর্ষের ফলেই চাঁদের সৃষ্টি।