বাংলাদেশ হাই কমিশন, লন্ডন বিগত এক দশকের ধারাবাহিকতায় ব্রিটিশ বাংলাদেশী ছাত্র-ছাত্রীদের কৃতিত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ একটি অনন্যসাধারণ অনুষ্ঠান আজ সেন্ট্রাল লন্ডনের কেনসিংটন টাউন হলে আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্য সরকারের শিক্ষা কারিকুলাম ২০১৬-এর অধীনে জিসিএসই পরীক্ষায় ন্যূনতম ১০টি বিষয়ে ‘এ’/‘এ*’ এবং এ লেভেল পরীক্ষায় ন্যূনতম ৩টি বিষয়ে‘এ’/‘এ*’ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সম্মাননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আগত ৮৮ জন ছাত্র-ছাত্রীকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। এ ধরণের উদ্যোগ বাংলাদেশের দূতাবাস/হাই কমিশনসমূহের মধ্যে একমাত্র লন্ডনস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনই বিগত এক দশক যাবত আয়োজন করে আসছে।

বাংলা ভাষা এবং তার ঐতিহ্য যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশী নতুন প্রজন্মের কাছে আরো পরিচিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ হাই কমিশনের উদ্যোগে বাংলা বিষয়ে যে সকল শিক্ষার্থী ভাল করেছেন, তাদেরকেও এই প্রথমবারের মত সম্মাননা প্রদান করা হয়।

বাংলাদেশ হাইকমিশন বাংলা ভাষার বিশেষ অবদানে ও একুশে ফেব্রুয়ারির ঐতিহ্যবাহী গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি”-এর জন্য বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিষ্ট ও সাহিত্যিক জনাব আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরীকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করে।

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার জনাব মো: নাজমুল কাওনাইন তাঁর বক্তব্যে বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারো ব্রিটিশ বাংলাদেশী ছাত্র/ছাত্রীদের অসাধারণ কৃতিত্ব বৃটেনে বাংলাদেশ কমিউনিটির ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। সম্মাননাপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের আগামী দিনের সম্ভাব্য নেতৃত্ব অভিহিত করে তিনি বলেন, আজকের এই সম্মাননা স্মারক ভবিষ্যতে তাদের মানসিক বিকাশে সহায়ক হবে এবং বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে বন্ধুত্বের সেতু বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করবে। হাই কমিশনার কাউনাইন সম্মাননাপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের আগামী দিনে ব্রিটিশ-বাংলাদেশ বন্ধনের দূত হিসেবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর স্বপ্নের “সোনার বাংলা” বিনির্মাণে আহবান করেন।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী জনাব আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি, যুক্তরাজ্য সরকারের মিনিষ্টার ফর এভিয়েশন লর্ড আহমেদ অব উইম্বলডন, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও প্রাক্তন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডা: দীপু মনি এমপি, হাউজ অব কমন্সের সদস্য পল স্কালি এমপি, স্টিফেন টিমস এমপি, হাউজ অব লর্ডসের সদস্য লর্ড শেখ, ব্যারোনেস ভার্মা, ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের সদস্য মিজ জিন ল্যামবাট্ এমইপিসহ সাংবাদিক, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবিসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ বাংলাদেশ হাই কমিশনের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং সম্মাননাপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের অভিনন্দন জানান। এছাড়াও, অনুষ্ঠানটিতে সম্মাননা প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকগণ, প্রবাসী কমিউনিটির বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক এবং যুক্তরাজ্যের মূলধারার ও প্রবাসী সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে হাই কমিশনের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ বাংলাদেশী শিশু-কিশোররা একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে।

এচিভমেন্ট এওয়ার্ড-২০১৬ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশন ২৮ পৃষ্টার একটি স্মরণিকা প্রকাশ করে।