মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর সমালোচনার মুখে প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষা করে নাগরিকত্ব আইন চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক।

সচিবালয়ে সোমবার (১৬ জানুয়ারি) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আইনমন্ত্রী এ কথা জানান।
আনিসুল হক বলেন, ‘নাগরিকত্ব আইনটি আমার লেজিসলেটিভ বিভাগে ভেটিংয়ের জন্য আছে। এটা ভেটিংয়ে আসার পর প্রবাসীদের কাছ থেকে অনেক রকম আলোচনায় যেটা উঠে এসেছে, সেটা হচ্ছে- তারা এ আইনের ব্যাপারে উদ্বিগ্ন।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে এটা চিঠি পেয়েছি। সেখানে প্রবাসীরা তাদের যে সব ব্যাপারে দুঃশ্চিন্তা আছে তা তুলে ধরেছেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে আমি বলতে চাই- প্রবাসীরা যে বিষয়গুলো নিয়ে আপত্তি তুলে ধরেছেন সেগুলো আবার খতিয়ে দেখব। প্রয়োজন হলে, শুধু প্রয়োজন হলে নয়, প্রবাসীদের সব সুবিধা যাতে প্রোটেকটেড হয়, সেভাবেই নাগরিকত্ব আইন নতুনভাবে করা হবে।’

গত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ‘বাংলাদেশ নাগরিকত্ব আইন, ২০১৬’ এর খসড়া অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।
এ আইনের বিভিন্ন ধারা নিয়ে আপত্তি তুলেছেন প্রবাসীরা। প্রস্তাবিত আইন অনুসারে দ্বৈত নাগরিক হলে তিনি জাতীয় সংসদ কিংবা স্থানীয় কোনো নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। বিচারকসহ প্রজাতন্ত্রের কোনো চাকরিতেও নিয়োগ পাবেন না।

প্রবাসীরা বলছেন, বাংলাদেশের সংবিধানে প্রত্যেক নাগরিকের সমান অধিকারের কথা বলা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে এ আইন সংবিধানের পরিপন্থি ও বৈষম্যমূলক।